আবারও আওয়ামী লীগের হাল ধরলেন শেখ হাসিনা; ওবায়দুল কাদের সাধারণ সম্পাদক

  •  
  •  
  •  
  •  

প্রতীক ইজাজ, ঢাকা থেকে: বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুনরায় তাঁর দল আওয়ামী লীগের সভাপতি হয়েছেন। এ নিয়ে তিনি নবমবারের মতো সভাপতি হলেন। দলের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের পুনরায় একই পদে নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি দ্বিতীয়বারের মতো সাধারণ সম্পাদক পদে বহাল হলেন।এই দুটি পদে একজন করে প্রার্থী থাকায় ভোটের প্রয়োজন হয়নি।এই কমিটি পরবর্তী তিন বছরের জন্য নির্বাচিত হলেন।

এর ফলে একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের ও এদেশের নেতৃত্ব দানকারী দল আওয়ামী লীগের এই দুই শীর্ষ পদ নিয়ে সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান হলো। বিশেষ করে সাধারণ সম্পাদক কে হচ্ছেন- এ নিয়ে দল ও দলের বাইরে এবং জাতীয় রাজনীতিতে আলোচনা ছিল সবচেয়ে বেশি। তবে শেখ হাসিনাই সভাপতি থাকছেন, তা একেবারেই নিশ্চিত ছিল বলা চলে।
আজ শনিবার দলের ২১ জাতীয় সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে কাউন্সিল অধিবেশনে কাউন্সিলার তাদের ভোটের মাধ্যমে দলের নেতৃত্ব নির্বাচন করেন। রাজধানী ঢাকার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটউশন মিলনায়তনে কাউন্সিল অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে গত শুক্রবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রধানমন্ত্রী ও দলের সভাপতি শেখ হাসিনা সম্মেলনের উদ্বোধণ করেন।

পূননির্বাচিত আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা ও সাধারন সম্পাদক ওবায়দুল কাদের

দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন- সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, বেগম মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, মোহাম্মদ নাসিম, কাজী জাফর উল্লাহ, অ্যাড. সাহারা খাতুন, নুরুল ইসলাম নাহিদ, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, পীযুষ কান্তি ভট্টাচার্য্য, ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক, লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান, রমেশ চন্দ্র সেন, অ্যাডভোকেট আব্দুল মান্নান খান, আবদুল মতিন খসরু, শাজাহান খান, জাহাঙ্গীর কবির নানক ও আবদুর রহমান।
যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকরা হলেন- মাহাবুব-উল-আলম হানিফ, ডা. দীপু মণি, ড. হাছান মাহমুদ ও আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম।
অন্য সম্পাদকরা হলেন – আন্তর্জাতিক সম্পাদক সাম্মী আক্তার, আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাজিবুল্লাহ হিরু, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নদী, দফতর সম্পাদক বিল্পব বড়ুয়া, প্রচার সম্পাদক ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন।
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সবুর, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক হয়েছেন মেহের আফরোজ চুমকি, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক হয়েছেন অ্যাড. মৃণাল কান্তি দাস, যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক হারুন অর রশীদ, শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক হয়েছেন শামসুন নাহার চাঁপা,, সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল এবং স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদ ডা. রোকেয়া সুলতানা।
সাংগঠনিক সম্পাদক আহম্মদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, এস এম কামাল হোসেন ও মির্জা আজম।
এবারের সম্মেলনের মধ্য দিয়ে নির্বাচিত দলের নতুন নেতৃত্বের মধ্যে মন্ত্রী থাকলেন পাঁচ জন। তারা হলেন- শেখ হাসিনা, ওবায়দুল কাদের, ড. আবদুর রাজ্জাক, দিপু মনি ও হাছান মাহমুদ।
উপদেষ্টা ছাড়া দলের কেন্দ্রীয় কমিটির মোট পদ ৮১। কাউকেন্সিল অধিবেশন শেষে কেন্দ্রীয় কমিটি ৪১ জনের নাম ঘোষণা করে। বাকীগুলো পরে ঘোষণা করা হবে। উপদেষ্টা পরিষদ আগের ৪১ জনকেই রাখা হয়েছে। বাকী ১০ জনের নাম পরে জানানো হবে। এবার নতুন করে উপদেষ্টাদের ১০টি পদ বাড়ানো হয়েছে।
কমিটিতে নতুন এলেন যারা: এবারই প্রথম দলের কেন্দ্রিয় নেতৃত্বে এসেছেন- সভাপতিমন্ডলীর সদস্য শাজাহান খান ও মহিলা সম্পাদক মেহের আফরোজ চুমকি। শাজাহান খান প্রথম কেন্দ্রীয় কমিটিত আসলেন। আইন সম্পাদক নজিবুল্লাহ হিরুও নতুন এসেছেন। ঘোষিত নতুন কমিটিতে (আংশিক) মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীরাই বাদ পড়েছেন।

আওয়ামী লীগের সম্মেলণ মঞ্চ

গঠন করা হলো সংসদীয় বোর্ড ও স্থানীয় সরকার নির্বাচনী বোর্ড: আওয়ামী লীগের কমিটির তালিকা প্রকাশের পাশাপাশি ২০১৯-২০২১ সালের জন্য দলের স্থানীয় সরকার/পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ মনোনয়ন বোর্ড ও সংসদীয় বোর্ডের সদস্যদের নামও ঘোষণা করা হয়েছে। আজ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ কমিটি ঘোষণা করা হয়।
সংসদীয় বোর্ড: সংসদীয় বোর্ডের সদস্যরা হলেন- শেখ হাসিনা, সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, কাজী জাফর উল্লাহ, ওবায়দুল কাদের ও মো. রশিদুল আলম।

স্থানীয় সরকার/পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ মনোনয়ন বোর্ড (২০১৯-২১): ১৯ সদস্য বিশিষ্ট কমিটিতে আছেন- শেখ হাসিনা, সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহ, কাজী জাফর উল্লাহ, মোহাম্মদ নাসিম, ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক, লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান, ওবায়দুল কাদের, মো. রশিদুল আলম, মাহবুব-উল-আলম হানিফ, ডা. দীপু মণি, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ

এখনো ফাঁকা যে সব পদ: এখনো সম্পাদকমণ্ডলীর কয়েকটি পদ ফাঁকা রয়েছে। এই পদগুলোতে এখন পর্যন্ত নতুন কাউকে দায়িত্ব দেয়া হয়নি। এর মধ্যে ফাঁকা রয়েছে- কোষাধ্যক্ষ,  অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদক, শ্রম ও জনশক্তি বিষয়ক সম্পাদক, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক, শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক,  তিনটা সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ, উপ-প্রচার এবং উপদপ্তর সম্পাদকের পদ।

পদোন্নতি: সদ্য বিদায়ী কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আফম বাহাউদ্দীন নাছিম পদোন্নতি পেয়ে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন। উপপ্রচার সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন আমিনুল ইসলাম আমিন এবং উপদপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়াকে পদোন্নতি দিয়ে দপ্তর সম্পাদক করা হয়েছে।

বাদ পড়েছেন যারা: সদ্য বিদায়ী কমিটিতে আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ ছিলেন এইচ এন আশিকুর রহমান, অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদক ছিলেন বর্তমান বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুন্সী। ধর্ম বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আব্দুলাহ।
সদ্য সাবেক কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, পানি সম্পদ উপমন্ত্রী  এনামুল হক শামীম, নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এবং শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের নাম নতুন ঘোষিত কমিটিতে আসেনি।
সদ্য সাবেক কমিটির শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন আব্দুস সাত্তার,  শ্রম ও জনশক্তি বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন হাবিবুর রহমান সিরাজের নামও নতুন কমিটিতে নেই।