আমরা কারো সঙ্গে যুদ্ধ করবো না, যুদ্ধ করতেও চাই না : প্রধানমন্ত্রী

  •  
  •  
  •  
  •  

মিয়ানমারের সঙ্গে শান্তিপূর্ণ আলোচনার মাধ্যমেই রোহিঙ্গা সংকট নিরসন করতে চেয়েছে বাংলাদেশ বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘আমরা কারো সঙ্গে যুদ্ধ করবো না, যুদ্ধ করতেও চাই না। সবার সঙ্গে শান্তিপূর্ণ সম্পর্ক রাখতে চাই।’

৪ এপ্রিল সকালে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে এসে উপস্থিত কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে একথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা আলোচনা করেছি, চুক্তি সম্পাদন করেছি এবং মিয়ানমারের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠানোটাই আমাদের লক্ষ্য। সেই লক্ষ্য নিয়ে আমরা এখনও কাজ করে যাচ্ছি। মিয়ানমারের সাথে আমরা ঝগড়া বাঁধাতে যাইনি।’

তিনি ভারত-মিয়ানমারের সাথে সমুদ্র সীমা এবং ভারতের সঙ্গে সীমান্ত সমস্যা সমস্যা সমাধানের কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘স্বাধীন দেশে হিসেবে প্রতিটি ক্ষেত্রে যেন বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারি সেই ব্যবস্থা আমাদের থাকা দরকার।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের নিজেদেরই অভিজ্ঞতা রয়েছে যে, ১৯৭১ সালে আমাদের ১ কোটি মানুষ শরণার্থী হিসেবে ছিল। তাদেরকে নিয়ে এসে পুনর্বাসন করতে হয়েছে, সেই অভিজ্ঞটাও রয়েছে।’

প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন ভারপ্রাপ্ত সেনা প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল মো. সামছুল হক, বিমানবাহিনী প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল মাসিহুজ্জামান সেরনিয়াবাত, নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল আওরঙ্গজেব চৌধুরী, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ, প্রতিরক্ষা সচিব আখতার হোসেন ভূইয়াসহ সামরিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।