আমার মন কেমন করে । নাদেরা সুলতানা নদী

  •  
  •  
  •  
  •  

 350 views

শৈশবের দেখা হঠাৎ কোন জোছনা রাতের অলৌকিক সৌন্দর্য, মা, মায়ের ক’জন ভাই, বান্ধবী, আর ছোট্ট এক কিশোরী আমি, ঘুম ঘুম চোখের বিস্ময় নিয়ে কোন এক ভরা ভাদরের মধ্যরাতের নৌকা আরোহীর মাঝে একজন। বর্ষার উছলে উঠা রূপালি পানির ঝিলিক বন্ধনে মাঠ, নদী আর বিল যখন একাকার, সেই পানি বৈঠা ঠেলে তিরতির করে এগিয়ে চলে নৌকা কোন এক মাঝ রাতে। খাল পেরিয়ে, ধানের মাঠের জল পেরিয়ে, অপার্থিব সেই বিলে যখন পৌঁছে, চারদিকে তখন লাল সাদা শাপলা আর পানি ফলের ছড়াছড়ি। দুই একটা বক সারস ভুল করে ভাঙ্গে রাতের স্তব্ধতা। আর তখনই চাঁদের ঝিকিমিকিতে চারদিকে অলৌকিক মায়া…আহা, আমার মন কেমন করে।

ছোট্ট কিশোরীর সেই সবটুকু সৌন্দর্য হৃদয়ে ধারণ করবার ক্ষমতা নেই তারপরও মনে গেঁথে রয়ে যায়। আর সেই ছাপটুকুই সময় বয়ে নিয়ে যায় জীবনভর।
কিন্তু মাঝে মাঝেই মনে হতে থাকে, জীবন রইলো পড়ে এমন কোন অলৌকিক জোছনা রাতের মায়াতেই বুঝি, আহা, আমার মনে কেমন করে।

শীত আসি আসি হেমন্তের সন্ধ্যে আমার খুব প্রিয়। অনেকবার খুব কাছ থেকে দেখা হয়েছে। এমন হয়েছে ছেলেবেলায় নানা বাড়িতে বেড়াতে যেয়ে। ধানী মাঠের আল ধরে হেমন্ত সন্ধ্যায় দূরের কুয়াশা চাদর জড়িয়ে ভোঁ দৌড়ের খেলায় মেতে উঠেছি চেনা অচেনা ক্ষণিক সাথীদের নিয়ে। পাকা ধানের মৌ মৌ গন্ধ, মাতাল করা সেই সব সন্ধ্যা নামি নামি সময়ের হীম হীম হাওয়াও যেন বলে, আহা, আমার মন কেমন করে।

কৈশোরে হঠাৎ পাড়ার হাঁটে গাইতে আসা খুব গভীর চাহনির এলোমেলো চুলের কিশোর প্রেমিক সে গায়কের না বলা কথার কাঁপন… ‘বনমালী গো তুমি পরজনমে হইয়ো রাঁধা’ বুঝা না বুঝা এলোমেলো এক অনুভব। আরো দূরে বুঝি বাজে বাঁশি, করুণ বাঁশি…। গায়ক সেই কিশোরীর দুঃখী চোখ মনে এসে ঘাই মেরে বলে উঠে আহা, আমার মন কেমন করে।

কৈশোর পার হতে যাওয়া কোন এক সময়ে দূরের ট্রেন যাত্রায় মুখোমুখি বসে থাকা বই পড়তে থাকা অচেনা যুবকের উদভ্রান্ত সুখী চোখ মুখের তীব্র আকর্ষণ… কী কথা বলে ঐ চোখ। বুকের মাঝে কান পেতে কী শুনা যেত, কী বলে হৃদয়! আসলেই কী থাকে কোন আহ্বান কোথাও অবেলায়! বিশ্ববিদ্যালয়ের তুমুল তারুণ্যের দিনগুলোতে বন্ধুর হাতে হাত রেখে শোনা বৃষ্টির মাতাল গান…
প্রথম প্রেমের ভুল আহ্বানের তীব্র কষ্ট লুকানো চোখের জলে ধোয়া বৃষ্টি ধারা।

আহা, একদিন ভীষণ নিবিড় করা কোন এক মাঝ রাত্রিরে কল্পনায় পাওয়া প্রেমিকের একটা তীব্র আলিঙ্গন, যেন এই এক স্বর্গীয় স্বপ্ন! শুধু একদিন ভালোবাসা মৃত্যু যে তারপর, কী তীব্র এই টান, কী ভীষণ কাঁপন লুকিয়ে মানুষ কাটিয়ে ফেলে এক জীবন। জানাই হয়ে উঠেনা অলিন্দে কাঁঠাল চাপা ফোটাতে লাগে কতোটা তীব্র আহ্বান, টান। আহা, প্রেম! আমার মন কেমন করে।

সবচেয়ে প্রিয় মানুষের মুঠোবার্তায় সুরে সুরে নিজের নামের ডাক… যেন এর চেয়ে সুন্দর সুর আর শুনিনি কভু! মানুষ জানে, এইসবই ক্ষণিক মায়ার খেলা, জীবনের আহ্বান, তারপরও কেউ কেউ বেলা অবেলায় শুধু এই ছোট্ট কিছু সময়ের কাছেই ফিরতে চায়, বারবার… এই ফিরতে চাওয়াই বুঝি বেঁচে থাকা! এই জীবনে কত প্রিয় মানুষের সাথে আর দেখা হয়নি, হবেনা।

কোন কোন প্রিয় এবং খুব ভালোবাসার মানুষের সাথে চাইও না আর দেখা হোক (পাছে নিজেকে ভুলে আবার ফাঁদে বাড়াই পা) লুকাতে হয় চোখের জল বৃষ্টি জলে, সেই প্রথম প্রেমের ভুল সময়ের মিথ্যে মায়ার মতন, চাইনা ফিরে আসুক চেনা সেই মন কেমন করা ডাক আবার ফিরুক!

মন খারাপ হয়। মাঝে মাঝে এই সময়গুলোতে দম বন্ধ হয়ে আসে আজকাল। মনের ক্যানভাসে, মিছিল। অনেক অনেক প্রিয় মুখ, ভালোবাসার বন্ধু স্বজন ছুঁয়ে দিয়ে যায়।
মন বলে এবার দেখা হোক, এবার হোক দেখা!
সেই মন আবার গেয়ে উঠে, ‘আর তো হলোনা দেখা… জগতে দোঁহে একা।’
মন কেবলই  আঁকড়ে ধরতে চায় এক জীবনে কুড়িয়ে পাওয়া সকল প্রেম, সাজাতে চায় প্রতিদিন প্রতিক্ষণ। চায় ‘এমনি করেই যায় যদি দিন যাকনা’ এমন করে গাইতে! কিন্তু হয়না পাওয়া বুঝি সব, এক জীবনে। আমরা সবাই বুঝি সবার জীবনে ক্ষণিকের অতিথি। তাই বুঝি সুর তুলি করুণ রাগে, ‘তুই ফেলে এসেছিস কারে মন মন রে আমার’।

করোনা কালের নিদারুণ ২০২০ কাটিয়ে যখন ভাবছি ২১টা আসলেই বুঝি সব ঠিক হয়ে যাবে, প্রিয়জনদের কাছে আবার ছুটে যাবো। যে যেখানে আছি কাটিয়ে উঠবো অনিশ্চিত সময়।
কিন্তু কোথায় কিছুই তো হলোনা। অপেক্ষার প্রহর বাড়ছে, বাড়ছে…
ধৈর্যের বাধ ভাঙ্গছে, ভাঙ্গছেই।

যে শহরে আছি হঠাৎ আবার পড়ে গেলাম লকডাউনের কবলে। এলোমেলো মন নিয়ে তাই আজ এই ‘মন কেমনের ডাক’ আমার কলামে।
যে বা যারা পড়লেন, সকলের জন্যে শুভ কামনা। এই পৃথিবী কাঙ্খিত হোক। ভালোবাসাময় হোক। আমাদের জীবন হোক প্রেমময়।

নাদেরা সুলতানা নদী
সহযোগী সম্পাদক, প্রশান্তিকা
মেলবোর্ন, অস্ট্রেলিয়া।

0 0 vote
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments