করোনা সতর্কতা: সিডনির নর্দার্ন বীচেচ এলাকায় লকডাউন

  •  
  •  
  •  
  •  

প্রশান্তিকা ডেস্ক: সিডনির উত্তরাঞ্চলীয় বীচ এলাকা খ্যাত পাম বীচ থেকে ম্যানলি পর্যন্ত পুরো নর্দার্ন বীচেচ এলাকায় আজ থেকে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। মাত্র দুইদিনের মধ্যে সিডনিতে করোনাভাইরাসে ৩৯ জন আক্রান্ত হয়ে পড়ে। যাদের বেশিরভাগই নর্দার্ন বীচেচ এলাকার বাসিন্দা। হঠাৎ বেড়ে যাওয়া এই ভাইরাস আক্রান্তের খবরে রাজ্য সরকার সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করছে।

জানা গেছে, ওই এলাকার এভালন আরএসএল ক্লাব করোনা হটস্পট হলেও পাম বীচ, মোনাভেল, ওয়ারিউড, ন্যারাবিন, ডিহোয়াই, নিউপোর্ট, ম্যানলি, ফ্রেন্সেস ফরেস্ট, টেরিহিলস সহ সকল সংশ্লিষ্ট এলাকা রেড জোন হিসেবে বিবেচিত হবে। শুধু এইসব এলাকাতেই সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ২৮ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এ খবরে পুরো এলাকার ২৫০,০০০ বাসিন্দা ঘরবন্দী হয়ে গেলেন।

নিউ সাউথ ওয়েলস প্রিমিয়ার গ্লাডিস বেরেজিকলিন আজ এক জরুরী ঘোষণায় বলেন, আজ বিকেল পাঁচটা থেকে বুধবার মধ্যরাত পর্যন্ত অত্র এলাকায় লকডাউন বজায় থাকবে। এই সময়সীমার মধ্যে ওই এলাকার বাসিন্দাদের বিনা প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হওয়া এবং অন্য এলাকার মানুষদের ওই এলাকায় যাওয়া নিষেধ করা হয়েছে। তবে অত্যন্ত জরুরী প্রয়োজনে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

ভিক্টোরিয়া সরকার নর্দার্ন বীচ এলাকাকে রেড জোন হিসেবে আখ্যা দিয়ে ওই এলাকার বাসিন্দাদের মেলবোর্নে বা রাজ্যে ঢুকতে দুই সপ্তাহের কোয়ারেন্টাইন বাধ্যতামূলক ঘোষণা করেছে। অন্যান্য রাজ্য সরকারও একই পদক্ষেপ নিচ্ছে বলে জানা গেছে। অন্য রাজ্যগুলো নিউ সাউথ ওয়েল্স রাজ্যকে আরও জরুরী পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সুপারিশ করছে। অন্যান্য রাজ্য এবং টেরিটোরিগুলোতে নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যের বাসিন্দাদের যেতে নিষেধ করা হয়েছে। তবে জরুরী প্রয়োজনে যেতে চাইলে তাদেরকে দুই সপ্তাহের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে যার জন্য প্রায় তিন হাজার ডলার খরচ হবে এবং সেটা ওই ব্যক্তিকেই বহন করতে হবে।

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments