গুড বাই সাইমন ড্রিং । আকবর দীপু

  •  
  •  
  •  
  •  

 127 views

বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু, প্রখ্যাত সাংবাদিক, সাইমন ড্রিং আর নেই। তিনি গত ১৬ জুলাই শুক্রবার রোমানিয়ার একটি হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের সময় মারা যান।

সাইমন ড্রিং ছিলেন একজন আন্তর্জাতিক পুরস্কার বিজয়ী সংবাদদাতা, টেলিভিশন উপস্থাপক এবং প্রতিবেদন নির্মাতা। তিনি বিশ্বখ্যাত সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের বৈদেশিক প্রতিনিধি হিসেবে বিশ্বের অনেক জায়গা ভ্রমণ করে তরতাজা ও গুরুত্বপূর্ণ খবর পরিবেশনের মাধ্যমে বিশ্ববাসীর দৃষ্টি কেড়েছেন। এছাড়াও তিনি লন্ডনভিত্তিক দ্য ডেইলি টেলিগ্রাফ, বিবিসি টেলিভিশন এবং রেডিও সংবাদ ও চলতি ঘটনা তুলে ধরার লক্ষ্যে কাজ করেছেন।

সাইমন ড্রিং, ১৯৭১ সালে।

সাইমন ড্রিং বাংলার মাটিতে পাকিস্তানী বাহিনীর নির্যাতন ও গণহত্যার প্রত্যক্ষদর্শী বিদেশী সাংবাদিক। লন্ডনের প্রখ্যাত ‘দ্য ডেইলি টেলিগ্রাফ’ এর প্রতিবেদক হিসেবে কাজ করার সময় ১৯৭১ সালের ৬ মার্চ কম্বোডিয়া থেকে ঢাকায় আসেন সাইমন ড্রিং। প্রত্যক্ষ করেন সাত মার্চে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ; এরপর ২৫ মার্চ রাতের গণহত্যা। উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালের ২৫মার্চ মধ্যরাতে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী গণহত্যা শুরু করার আগে ঢাকায় অবস্থানরত প্রায় অর্ধশত বিদেশি সাংবাদিককে আটকে ফেলে তখনকার হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে। তাদের হোটেল থেকে সরাসরি বিমানে তুলে ঢাকা ছাড়তে বাধ্য করা হয় যাতে গণহত্যার কোনো খবর সংগ্রহ করতে না পারে বিশ্ব গণমাধ্যম। তাদের মধ্যে ছিলেন ব্রিটিশ সাংবাদিক সাইমন ড্রিং। পাকিস্তানি সামরিক আইন না মেনে তিনি হোটেলে লুকিয়ে থাকেন। শ্বাসরুদ্ধকর ৩২ ঘণ্টা সময় কাটে হোটেলের লবি, ছাদ, বার, কিচেনের মত জায়গায়। নিজের জীবন বিপন্ন করে সরেজমিন প্রতিবেদন প্রকাশ করেন; সারা বিশ্বকে জানিয়ে দেন নিরীহ বাঙালির উপর পাকিস্তানি বর্বর হামলার কথা। মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে আন্তর্জাতিক জনমত গড়ে উঠার প্রাথমিক ধাপ ছিলো সাইমন ড্রিং এর প্রতিবেদন।

মুক্তিযুদ্ধে তার ভূমিকা ছিলো সহযোদ্ধার। তিনি ঘুরে ঘুরে প্রত্যক্ষ করেন গণহত্যার বাস্তব চিত্র। ২৭ মার্চ কারফিউ উঠে গেলে সায়মন ড্রিং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইকবাল হল, রাজারবাগ পুলিশ লাইনস, পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকাসহ ধানমণ্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর বাড়ি ঘুরে দেখেন। নানা চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের প্রথম খবর প্রকাশ করেন ৩০ মার্চ ১৯৭১, ডেইলি টেলিগ্রাফে। তার প্রকাশিত প্রতিবেদন আন্তর্জাতিক জনমত তৈরিতে ভূমিকা রেখেছিলো।

কলকাতা থেকে মুক্তিযুদ্ধের খবর সংগ্রহ করে পাঠিয়ে দিতেন লণ্ডনের টেলিগ্রাফ পত্রিকায়। ১৬ ডিসেম্বর মিত্রবাহিনীর ট্যাংকে ময়মনসিংহ হয়ে স্বাধীন বাংলায় আসেন সাইমন ড্রিং।

১৬ ডিসেম্বরের পর ঢাকা ক্যান্টনমেন্টে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর গোয়েন্দা কর্মকর্তা সিদ্দিক সালিকের সঙ্গে দেখা হয়েছিল সাইমনের। সাইমন তাঁকে জানান, ২৫ মার্চ বিদেশি সাংবাদিকদের বের করে দেওয়ার সময় তিনি লুকিয়ে থেকে গিয়েছিলেন। এরপর প্রশ্ন করেছিলেন, ‘আমাকে খুঁজে পেলে তোমরা কী করতে?’ সিদ্দিক সালিক বলেছিলেন, ‘গুলি করে মারা হতো।’

বাংলার মাটিতে টেলিভিশনের আধুনিক রুপকার হিসেবে তিনি গড়ে তুলেছিলেন একুশে টেলিভিশনকে। সে পথ ধরেই এগিয়েছে এদেশে বেসরকারি টিভি চ্যানেলগুলো।

পেশাগত জীবনে ২২টি যুদ্ধ, অভ্যুত্থান ও বিপ্লব প্রত্যক্ষ করেছেন। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ পাকিস্তানি সেনাদের নির্যাতনের প্রতিবেদন তৈরি করে কাজের স্বীকৃতি হিসেবে ইন্টারন্যাশনাল রিপোর্টার অব দ্যা ইয়ার নির্বাচিত হন। অর্জন করেন অসংখ্য পুরস্কার।
অন্তিম অভিবাদন ও শ্রদ্ধা।

0 0 vote
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments