নড়াইলে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন পর্বতারোহী রত্না

  •  
  •  
  •  
  •  

 162 views

প্রশান্তিকা ডেস্ক: বাংলাদেশের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ কেওক্রাডাং, আফ্রিকার কিলিমানজারো, মাউন্ট কেনিয়া জয় করার পরে এভারেস্ট জয়ের স্বপ্নের দিকে এগোচ্ছিলেন রেশমা নাহার রত্না। অকষ্মাৎ শুধু স্বপ্ন থেকেই নয় জীবন থেকে ছিটকে গেলেন রত্না। গতকাল শুক্রবার ঢাকায় সংসদ ভবণ এলাকায় গাড়িচাপায় নিহত হয়েছেন পর্বতারোহী রেশমা নাহার রত্না।

নড়াইলে জন্মভুমিতে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন রত্না। আজ শনিবার সকালে নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার কাশিপুর ইউনিয়নের ধোপাদাহ গ্রামে তাকে সমাহিত করা হয়। নড়াইলের ধোপাদাহ গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আফজাল হোসেন সিকদারের মেয়ে রত্না ঢাকার একটু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন।

তিনি বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের লাইব্রেরি, আলোর ইশকুলের কর্মসূচি, পাঠচক্রসহ নানা উদ্যোগের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। চলাচলের জন্য রাজধানীর বুকেই সাইকেল চালাতেন রত্না। অবশেষে তার সাইকেল চালানোই কাল হলো।
অন্য সব ছুটির দিনের মতোই শুক্রবার সকালে হাতিরঝিলে বন্ধুদের সঙ্গে দৌড়ানোর পর মিরপুরের বাসায় সাইকেল চালিয়ে ফেরার পথে সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হন রত্না।

জানা গেছে, জাতীয় সংসদ ভবনের পাশে চন্দ্রিমা উদ্যানের লেক বরাবর সাইক্লিং করার সময় একটি প্রাইভেটকার চাপা দিলে তিনি ছিটকে রাস্তার মাঝে চলে যান। এতে তিনি মাথায় গুরুতর আঘাত পান। পরে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

রত্না ২০১৬ সালে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ কেওক্রাডাংয়ের চূড়া স্পর্শ করেন। ২০১৯ সালে ভারতের লাদাখে অবস্থিত স্টক কাঙ্গরি পর্বত এবং কাং ইয়াতসে-২ পর্বত আরোহণ করেন। ২০১৮ সালে আফ্রিকার উচ্চতম পর্বত মাউন্ট কিলিমানজারো ও দ্বিতীয় উচ্চতম পর্বত মাউন্ট কেনিয়া অভিযানে অংশগ্রহণ করেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে মাউন্ট এভারেস্ট আরোহণের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। মাত্র ৩৩ বছর বয়সেই ঝরে গেলে অদম্য সাহসী রত্নার জীবন।

0 0 vote
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments