বাংলাদেশ অস্ট্রেলিয়া ফ্যাশন অ্যাসোসিয়েশন (বাফা) এবং গ্র্যান্ড ল্যাকেম্বা ঈদ বাজার ২০২১

  •  
  •  
  •  
  •  

প্রশান্তিকা ডেস্ক: ২০২১ সালের গ্র্যান্ড লাকেম্বা ঈদ বাজার নিয়ে গতকাল বাংলাদেশ অস্ট্রেলিয়া ফ্যাশন আ্যসোসিয়েশন (বাফা) আয়োজন করেছিলো এক সাংবাদিক সম্মেলন। লাকেম্বার গ্রামীণে আয়োজিত এই সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সিডনি থেকে প্রকাশিত ও প্রচারিত বিভিন্ন প্রিন্ট ও অনলাইন মিডিয়ার সাংবাদিক, কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিরা।

অনুষ্ঠানে বাফার বিভিন্ন বিষয় এবং আসন্ন ঈদ বাজার নিয়ে বক্তব্য রাখেন তাম্মি পারভেজ (প্রেসিডেন্ট), সাজেদা আক্তার সানজিদা (ভাইস প্রেসিডেন্ট ), সোফিয়া বেগম (সাধারণ সম্পাদক), তাফতুন নাঈম নিতু (সাংস্কৃতিক সম্পাদক), তানজিমা সাবাহ (নির্বাহী সদস্য), নাহিদা সুলতানা (নির্বাহী সদস্য), ফাহমিদা মান্নান ( নির্বাহী সদস্য) এবং উপস্থিত অন্যান্য ব্যক্তিরা।

বাফার পক্ষ থেকে বলা হয়, বাংলাদেশ অস্ট্রেলিয়া ফ্যাশন অ্যাসোসিয়েশন (বাফা) সম্প্রতি সদস্যপদ ভিত্তিক অলাভজনক একটি সংগঠন হিসাবে নিবন্ধিত এবং প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। বাফা একটি বাংলাদেশী বুটিক অ্যাসোসিয়েশন এবং এটি এমন একটি প্ল্যাটফর্ম যা অস্ট্রেলিয়ায় বসবাসকারী সমস্ত বাংলাদেশী ফ্যাশন ডিজাইনার, বুটিকের মালিক/ উদ্যোগী (ফ্যাশন, গহনা, মেক আপ-বিউটি, মেহেদি আর্টিস্ট ইত্যাদি) সবাইকে একসাথে সংযুক্ত রাখার জন্য এবং আমাদের সংস্কৃতি ও গর্ব ধরে রাখার জন্য বৃহত্তর মিশন ও ভিশনের একটি বাংলাদেশী সংগঠন হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এবং কাজ করছে। বাফা তার সদস্য বাংলাদেশী ফ্যাশন ব্যবসাগুলোর সর্বোচ্চ স্বার্থ রক্ষার জন্য প্রতিনিধিত্ব করছে। বাফা’র মাধ্যমে এর সমস্ত সদস্যকে বৃহত্তর কমিউনিটির কাছে পৌঁছে দেয়ার কাজ চলছে।

একই প্লাটফর্ম থেকে ২০১৯ সালে, লেইস ফিতা সিডনি প্রথম গ্র্যান্ড ল্যাকেম্বা ঈদ বাজার ইভেন্টের আয়োজন করেছিল। কিন্তু দুঃখের বিষয়, ২০২০ সালে কোভিড-১৯ সংকটের কারণে তাদের ইভেন্টগুলো বাতিল করা হয়েছিল এবং এর ফলে বেশিরভাগ বুটিক ব্যবসার উপর তার প্রভাব পড়েছিল ও তারা একটি সংকটময় অবস্থার মধ্যে ছিল। এটিই একটি মূল কারণ, যার জন্যই নির্বাহী কমিটির সদস্যরা সম্প্রতি বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত সমস্ত বুটিক এবং অন্যান্য ফ্যাশন ব্যবসায়ের মালিকদের সমন্বয়ে ও তাদের বৃহত্তর স্বার্থ রক্ষার জন্যই বাফা প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

সাংবাদিক সম্মেলনে তারা জানান, ২০২১ সালে গ্র্যান্ড ল্যাকেম্বা ঈদ বাজার প্রতি ঈদের আগের শনিবারটিতে যা ০৮ মে ও ১৭ জুলাই ক্যাম্পেসি’র অরিয়ন ফাংশন সেন্টারে অনুষ্ঠিত হবে। সরকারী কোভিড সুরক্ষা পরিকল্পনা অনুসরণ করে বাফা এই ইভেন্টগুলোর নিরাপত্তায় বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। তারা আরো বলেন, এই বছরে এবং ভবিষ্যতের সমস্ত অনুষ্ঠানগুলো বাফা কতৃক আয়োজিত হবে।

তাম্মি পারভেজ তাঁর বক্তব্যে বলেন, “ ব্যবসায়ের প্রচার, সামাজিক সম্প্রীতি এবং উৎসবের গুরুত্বপূর্ণ উপকরণ হিসাবে ঈদের আয়োজনগুলো অনেক কমিউনিটির কাছে বিশাল স্থান পেয়েছে। প্রতি বছর আমরা দেখছি বিভিন্ন ঈদ আয়োজনগুলো আরো বড় এবং আরও ভাল ইভেন্টে পরিণত হচ্ছে। সিডনি এবং অন্যান্য শহরগুলি থেকে ফ্যাশন স্টোরগুলি দৃষ্টিনন্দন পোশাক এবং আনুষাঙ্গিক সামগ্রীসহ গ্রাহকদের কাছে পৌঁছানোর নিমিত্তে আমাদের সাথে যোগ দিচ্ছে। এই ঈদ বাজারটি আরও বেশি সংখ্যক তরুণ উদ্যোক্তাদের পাশাপাশি গ্রাহকদেরও অংশগ্রহণের মাধ্যমে বিভিন্ন কমিউনিটির সাম্প্রতিকতম ফ্যাশন অনুভব এবং সংস্কৃতির একটি সরাসরি সংযোগ স্থাপন করবে। এটি বাংলাদেশী, ভারতীয়, পাকিস্তানি, লেবানিজ এবং মধ্য প্রাচ্য, ইন্দোনেশিয়ান, মালয়েশিয়ান এবং অন্যান্য মূলত মুসলিম সম্প্রদায়ের বন্ধুত্বপূর্ণ পরিবেশে একত্রিত হবার একটি উৎসবের ইভেন্ট।”

বাফা’র মূল লক্ষ্য ঈদ উপলক্ষে যেন বিভিন্ন কমিউনিটি, সামাজিক-সাংস্কৃতিক এবং সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্যের মাধ্যমে বিভিন্নরকম সুবিধা পেতে পারে। গ্র্যান্ড ল্যাকেম্বা ঈদ বাজার ইভেন্ট সমস্ত কমিউনিটির জন্য সর্বাধিক সু-সংগঠিত মাল্টিকালচারাল ঈদ শপিং হাব এবং উৎসবগুলোর একটি যেখানে সমস্ত কমিউনিটির সব পরিবার তাদের ঈদের কেনাকাটা এক জায়গায় সম্পন্ন করতে পারবে।

বাফা আরও দৃঢ় ভাবে বিশ্বাস করে যে, বাংলাদেশি এবং অন্যান্য কমিউনিটির বিভিন্ন সংস্থাগুলি এবং তাদের সমস্ত অনুষ্ঠান বিশেষত ঈদ বাজার/ঈদ প্রদর্শনী বা ঈদ মেলার অন্যান্য অনুষ্ঠান একে অপরের সাথে একাত্মতাপূর্ণ সম্পর্ক এবং সহযোগিতা ও সমর্থন বজায় রাখতে সম্মিলিতভাবে সচেষ্ট হবে।

পরিশেষে সবাইকে আগামী ০৮ মে ক্যাম্পেসি’র অরিয়ন ফাংশন সেন্টারে গ্র্যান্ড ল্যাকেম্বা ঈদ বাজার ইভেন্টে অংশগ্রহণের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments