মেলবোর্নে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষ উদযাপন

  •  
  •  
  •  
  •  

মিতা চৌধুরী, মেলবোর্ন থেকে : অস্ট্রেলিয়ার ভিক্টোরিয়ায় বসবাসকারী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে গড়া অ্যালামনাই সংগঠন ডিইউ ফ্যামিলি ভিক্টোরিয়া ইনক গত ১২ ডিসেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে ‘ গৌরব ও ঐতিহ্যের শতবর্ষ ‘ শীর্ষক এক পুনর্মিলনীর  আয়োজন করে। এতে ভিক্টোরিয়ায় বসবাসরত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র ছাত্রীদের সঙ্গে অন্য রাজ্যে বসবাসকারী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীরাও অন্যগ্রহন করেন।

মেলবোর্নের হপ্পার্স ক্রসিংয়ে এংকর ইভেন্ট সেন্টারে বেলা ১২:০০ টা থেকে উৎসবমুখর পরিবেশে প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের আগমন শুরু হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে ওঠে গোটা হলরুম, সকলের মাঝেই লক্ষ্য করা যায় এক উৎসবের আমেজ। করোনার দীর্ঘ গৃহবন্দী জীবনের পর বিশ্ববিদ্যালয়ের বন্ধুদের কাছে পেয়ে অনেকেই  স্মৃতি রোমন্থনে আবেগী হয়ে পড়েন।

বেলা ১টায় ডিইউ ফ্যামিলি ভিক্টোরিয়া ইনক’র সভাপতি জনাব ব্যারিস্টার নুরুল ইসলাম খানের স্বাগতঃ ভাষণের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের আয়োজনের আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়। জনাব নুরুল ইসলাম খান তার ভাষণে আয়োজনে উপস্থিত সকলকে বিশেষ ধন্যবাদ জানান তাদের স্বতঃস্ফূর্ত অন্যগ্রহনের জন্য। একই সঙ্গে তিনি উল্ল্যেখ করেন, করোনা উত্তর সময়ে আমাদের  অনেক সীমাদ্ধতা ছিল, তাই নিয়ে আমরা আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি আমাদের প্রাণের প্রাঙ্গনের জন্মশত বর্ষ উৎযাপনের। সভাপতি নুরুল ইসলাম খান তার স্বাগতঃ বক্তব্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নানা অর্জন তুলে ধরেন।

অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র যারা আমাদের মহান  মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন বা প্রতক্ষ্য করেছিলেন তাদের নিয়ে “ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও মুক্তিযুদ্ধ” শীর্ষক একটি  স্মৃতিচারণের আয়োজন করেন এই আয়োজনে। স্মৃতিচারণে অংশ নেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র প্রফেসর কামরুল আলম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র ও বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব  ড. শাহাদাৎ খান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র ও বীর মুক্তিযোদ্ধা  জনাব কাজী সেলিম এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র ও বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব আনিসুর রহমান। এছাড়াও আলোচনায় অংশ নেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও অস্ট্রেলিয়ান ‘অর্ডার অফ অস্ট্রেলিয়া মেডেল’ ভূষিত  জনাব কামরুল ইসলাম চৌধুরী যিনি এই সংগঠনটির একজন পৃষ্ঠপোষকঃ ও শুভাকাঙ্খী।

মধ্যাহ্ন ভোজের পর বেলা ২:৩০-এ মূল সাংস্কৃতিক পর্ব শুরু হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসের ছাত্রী রওনাক জাহান সুবর্ণা, অর্থনীতির ছাত্রী জীনাতুর রেজা খান শাওন ও চারুকলার ছাত্রী হাসিনা চৌধুরী মিতা’র সঞ্চালনায় পরিচালিত হয় এই আয়োজন। সাংস্কৃতিক পর্বে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা গান ও আবৃত্তি পরিবেশন করেন সেই সঙ্গে মেলবোর্নে বসবাসকারী গুণী শিল্পীরাও আমন্ত্রিত হয়ে এসেছিলেন এই আয়োজনে।

সাংস্কৃতিক পর্বের পর আয়োজনের পৃষ্ঠপোষকদের হাতে সম্মাননা তুলে দেয় ডিইউ ফ্যামিলি ভিক্টোরিয়া ইনক’র ওয়ার্কিং কমিটির সদস্যরা। এর পর আয়োজন করা হয় রেফেল ড্র’র।

বেলা ৬:৩০-এ ডিইউ ফ্যামিলি ভিক্টোরিয়া ইনক’রসাধারণ সম্পাদক ড. ইয়াসমিন খন্দকার তার সমাপনী বক্তব্য ও ধন্যবাদ পেশ করেন। ড. ইয়াসমিন খন্দকার উপস্থিত সকলকে ও আয়োজনে সংশ্লিষ্ট সকল সদস্য, পৃষ্ঠপোষক ও স্বেচ্ছাসেবকদের বিশেষ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। সম্পাদক ড. ইয়াসমিন খন্দকারের বক্তব্যের পর মঞ্চে আসেন মেলবোর্নের বাংলা ব্যান্ড LinkT । ব্যান্ড “LinkT-এর পরিবেশনার মাধ্যমে আয়োজনের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি ঘটে।

শতবর্ষ পূর্তির এই আয়োজনে আরো যারা ছিলেন ও যাদের কঠোর পরিশ্রমে অতি অল্প সময়ের মাঝে এই আয়োজন সফলভাবে সম্পন্ন করা সম্ভব হয়েছে তারা হলেন ডিইউ ফ্যামিলি ভিক্টোরিয়া ইনক’র ট্রেজারার জনাব মোহাম্মাদ মুজিব শিশির, ভাইস প্রেসিডেন্ট জালাল আহমেদ, কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য জনাব রোমান আহমেদ, জনাব রাশেদুর রহমান তানভীর, ব্যারিস্টার রুমানা জাহান, সিমকি চৌধুরী আসাদ তমাল, জনাব রাকিব দেওয়ান,  নুসরাত ফারাহ খান তৃনা ও জনাব দেওয়ান মামুন।

এছাড়াও আয়োজন চলাকালীন সময়ে যেসকল সেচ্ছাসেবকগণ স্বপ্রণোদিতভাবে আয়োজকদের সাহায্য করেছেন আয়োজনকে সফল ও সুশৃঙ্খল করতে ডিইউ ফ্যামিলি ভিক্টোরিয়া ইনক তাদের সকলের প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছে।

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments