শনিবার অস্ট্রেলিয়ায় সাধারণ নির্বাচন, লেবার-লিবারেল হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে

  •  
  •  
  •  
  •  

প্রশান্তিকা রিপোর্ট: রাত পোহালেই অস্ট্রেলিয়ায় ৪৬তম ফেডারেল নির্বাচন। এই নির্বাচনে পরপর দু টার্মে ক্ষমতায় থাকা লিবারেল পার্টি জয়লাভ করে হ্যাট্টিকের পথে নাকি অনেকদিন ক্ষমতায় না থাকা বুভুক্ষ লেবার পার্টি ক্ষমতায় যাবে। সর্বশেষ জনমত জরিপে লেবার পার্টি শতকরা ৫১ এবং লিবারেল পার্টি শতকরা ৪৯ ভাগ এগিয়ে রয়েছে। অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে লিবারেল পার্টির স্কট মরিসন শতকরা ৪৫ ভাগ এবং লেবার পার্টির বিল শর্টেন শতকরা ৩৭ ভাগের পছন্দে রয়েছেন। তবে গণমাধ্যমগুলোর বিশ্লেষণ দেখে এখন পর্যন্ত কোন দলকে এগিয়ে রাখা যাচ্ছে না। এবারই প্রথম রেকর্ড সংখ্যক ৪.৫ মিলিয়ন ভোটার ইতোমধ্যে তাঁদের ভোট দিয়েছেন। সুতরাং এই নির্বাচনে জনগনের আগ্রহ আগের চেয়ে অনেক বেশি বলে প্রতীয়মান হচ্ছে।

লেবার নেতা বিল শর্টেন।

লেবার পার্টির নেতা বিল শর্টেন তাঁর সমাপনী বক্তব্যে নির্বাচিত হয়ে সরকার গঠনে আশাবাদী। টাউনহলের এক বক্তব্যে তিনি বলেন, “আমরা চাই আমাদের শিশুরা সুশিক্ষা পাক। আমরা জনগনের ইচ্ছের প্রতিফলন ঘটাতে চাই। আমরা বেকার সমস্যার লাঘব চাই, আর যারা চাকুরী করছেন তাদের বেতন ভাতা আরও বাড়াতে চাই। প্রতিদ্বন্দ্বী লিবারেল পার্টি যে যত্রতত্র নাগরিক সুবিধা কেটে নিচ্ছে আমরা চাই তার অবসান হোক। আর সে কারনেই আমি প্রধানমন্ত্রী হওয়ার জন্য দাঁড়িয়েছি। আমি মনে করি সাধারন অস্ট্রেলিয় জনগনের স্বার্থ রক্ষার এটাই সুবর্ণ সময়। It’s time to make sure all Australians can get a fair go.” উল্লেখ্য, এবছর বিরোধী দলের প্রধান হিসেবে বিল শর্টেন দ্বিতীয় বারের মতো ফেডারেল নির্বাচন করছেন। এর আগে তিনি লিবারেল পার্টির ম্যালকম টার্নবোলের কাছে হেরে যান।

লিবারেল নেতা প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন।

জনগনের একটি বড় অংশ অভিবাসী। এদের মধ্যে বাংলাদেশী অভিবাসীর সংখ্যাও নেয়াহেৎ কম নেই। অতীতে দেখা গেছে অধিকাংশ বাংলাদেশী অভিবাসীরা লিবারেল পার্টির চেয়ে লেবার পার্টিকে পছন্দ করেছে। এবারও সেই প্রবণতা রয়েছে। তবে অনেকেই এখন লিবারেল পার্টিকে সমর্থন করছেন।

গণমাধ্যমের জনমত জরিপে পিছিয়ে থাকা লিবারেল পার্টি নির্বাচনের প্রাক্কালে ক্রমান্বয়ে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। আগামীকালের নির্বাচনে তাই লেবার-লিবারেল হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

ক্ষমতাসীন লিবারেল পার্টির প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন নির্বাচন প্রাক্কালে গনমাধ্যমকে বলেন,
“আমরা জনগন থেকে কম ট্যাক্স নেবার পক্ষে। আপনারা শনিবারে লিবারেল ও ন্যাশনাল পার্টিকে ভোট দিয়ে আপনাদের পকেটের টাকা নিজেদের পকেটেই রাখবার গ্যারান্টি দেন। কারন বিল শর্টেন বা লেবার ক্ষমতায় আসলে সেটা ট্যাক্স হিসেবে নিয়ে যাবে। আমরা নির্বাচিত হয়ে ক্ষমতায় গেলে অস্ট্রেলিয়ানরা মাত্র ৫ শতাংশ জমা দিয়ে তাদের বাড়ি কিনতে পারবে এবং সেখানেও আমরা কর বসাবো না।”

প্রপার্টি মার্কেটে দীর্ঘদিন স্থবির অবস্থা বিরাজ করছে। সেই হিসেবে প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসনের এই ঘোষনা সত্যিই এটিকে চাঙ্গা করবে কিনা বুঝা মুশকিল।

আগামীকাল শনিবার সারাদিন ভোটগ্রহণ চলবে। দিনশেষে জানা যাবে কোন দল বা কে হলেন বিজয়ী। তবে নির্বাচনে লড়াই হবে হাড্ডাহাড্ডি সেটা আজই অনুমান করা যাচ্ছে।