সগৌরবে চলছে সাদাত হোসাইনের নান্দনিক গানের ছবি গহীনের গান

  •  
  •  
  •  
  •  

হুসনেয়ারা শিখা, ঢাকা থেকে: দেখে আসলাম ‘গহীনের গান’, কথাসহিত্যিক ও পরিচালক সাদাত হোসাইন নির্মিত প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য মিউজিক্যাল বাংলা সিনেমা। অনেকদিন পরে ছবিটি মানুষকে হলমুখী করেছে। শৈত্য প্রবাহের নিদারুন ছোবলও মানুষকে ঘরে রাখতে পারেনি। পত্রপত্রিকার সেরকম খবর দেখেই হলে এসেছি। ঘটনা মিথ্যে নয়। গতকাল সন্ধ্যায় ঢাকার শ্যামলী সিনেমা হলে যত মানুষ দেখছি, যেনো গহীনের গানই দেখতে এসেছেন। ছবিটা নিয়ে লিখতে হবে প্রশান্তিকায়। সম্পাদকের তাড়া ছিলো। লেখার আগেই ছবিটা দেখে নিলাম। বাড়ির ছোট বড় সকলে, বন্ধু বান্ধব সহ প্রায় কুড়ি জনকে নিয়েই উপভোগ করলাম ‘গহীনের গান’।

গান নির্ভর সিনেমা ‘গহীনের গান’। প্রথম দৃশ্যেই বৃষ্টি। শুরুটা দেখেই বুকটা কেঁপে উঠলো। দারুণ এক অভিমানের ছোঁয়া। সিনেমার মুল চরিত্র আসিফ আকবর আর তার বউয়ের চরিত্রে তানজিকা আমিনের এক বুক অভিমান তার স্বামীর সাথে, কারণ সে জানতে পারে তার স্বামীর কাছে গানই জীবন গানই ভালোবাসা, তাহলে সে কে? স্ত্রী কি স্বামীর কাছে ভালোবাসা নয়? সে ভালোবাসা কি জীবন নয়? এই প্রশ্ন টাই একসময় তাদেরকে আলাদা করে দেয়। স্ত্রীর অভিমান ভাঙ্গানোর চেষ্টায় সেই গান।’রাজার মেয়ে রাজকন্যা’ গানের কথা ও সুর খুব ভালো লেগেছে। দৃশ্যায়নও ছিলো হৃদয়স্পর্ষী। আসিফ আর তানজিকাকে অসম্ভব লেগেছে। আসিফের অভিনয় দেখে এতটুকুও মনে হয়নি তিনি শিল্পী নন শুধু একজন পাকা অভিনেতা। আমার যেটা মনে হয়েছে যে গানই জীবন আবার অন্য দিকে জীবনই তো একটি মানুষের কাছে সবকিছু। লেখক বা পরিচালক বুঝাতে চেয়েছেন, সবার জীবনেই গল্প থাকে আর এই গল্প গুলোই গান হয়ে যায় কিন্তু মেয়েটা তা বুঝতে চায় না। অবশ্য আমরা সবাই এমন। চরিত্র গুলো খুব আপন আর নিজের মনে হয়েছে। একদমই মনের গহীনে ঘটে যাওয়া কিছু বাস্তব জীবনের কঠিন সত্যি কিছু পাওয়া। আমার মনে হয় গহীনের গান যারাই দেখবেন এই বিষয়টা রিলেট করতে পারবেন।

শ্যামলী হলে দর্শকের একাংশ, ছবি কৃতজ্ঞতা: হুসনেয়ারা শিখা

কোথায় যেন একটা শুন্যতা কাজ করে বুকের ভেতর। সেই শূন্যতার হাহাকার ফুটে উঠেছে গান আর গল্পে। ‘বড় শূন্য শূন্য লাগে ভয়ে’ এই গানটিও সুন্দর করে প্রকাশ করা হয়েছে। বয়োবৃদ্ধ অভিনেতা হাসান ইমামকে কেন্দ্র করে গল্পে গানই গল্প আর গানই জীবন কিন্তু তারপর ভালোবাসা কোথায়? সেটি খুঁজতেই জীবনটা ফুরিয়ে যায়, মানুষ মানুষকে হারিয়ে ফেলে, কৈশোর হারিয়ে তারুণ্যে, তারপরে যৌবনে পৌঁছায়। কিন্তু শূন্যতা পিঁছু ছাড়েনা। হাসান ইমাম বাবার চরিত্রে, ‘বাবা আমার হাতটা একটু ধরো’ গানটিতে অদ্ভুত সুন্দর অভিনয় করেছেন। যা দেখে দর্শকেরা আবেগে আপ্লুত হয়েছেন বারবার। তাঁর বুড়ো হওয়া, তারুণ্য বয়সে চিত্র শিল্পী চরিত্রে অভিনয় আর তাঁর সংলাপ, ‘মানুষ নিজেই কেবল নিজের থাকে, কারো কেউ থাকে না’ আহা কি দারুণ সত্যি কথা তুলে ধরেছেন পরিচালক।

গহীনের গান সিনেমার অভিনেতা ও কলাকুশলীদের সঙ্গে পরিচালক সাদাত হোসাইন।

রয়েছে একটি অসম্পূর্ণ প্রেমের গল্প। যা সত্যি সত্যিই অনেক কষ্টদায়ক বা রোমাঞ্চকর আনন্দদায়কও বটে। পাওয়া বা না পাওয়ার এই গল্পটিতে আমান রেজা ও তমা মির্জা দারুণ অভিনয় করেছেন। ভাল লেগেছে গিফট দেওয়ার কৌশলটিতে একটা পাতার ঝুড়িতে পাতার নিচে লাল চুড়ি আর লাল টিপ, কিন্তু নায়িকা ভেবে ছিল তাতে শুধু মরা পাতা। তমা মির্জার মুখের সংলাপও ছিলো ভালো লাগার মতো, ‘জগতের সব গল্প তো একই ভালোবাসা আর ঘৃণার গল্প’।

সাদাত হোসাইনের পরিচালনায় মিউজিক্যাল ফিল্ম ‘গহীনের গান’। সিনেমাটির গল্প ও চিত্রনাট্য লিখেছেন তিনি নিজেই। ছবির মূল বিষয় গান হলেও সংলাপগুলো মন ছুঁয়ে গেছে। শিল্পী হলেও আসিফের অভিনয়, সংলাপ বলা ভালো লেগেছে। হাসান ইমামের যুবক বয়সের চরিত্রে কাজী আফিস ও তার স্ত্রীর চরিত্রে তুলনা আল হারুনের অভিনয়ও ছিলো দারুণ। হাসান ইমাম, তানজিকা, তমা মির্জারা প্রফেশনাল অভিনেত্রী। তাঁরা তাঁদের স্ট্যান্ডার্ড বজায় রেখেছেন।

গরীনের গানে অনবদ্য অভিনয় করেছেন তানজিকা আমিন

সিনেমায় সর্বমোট ৯টি গান রয়েছে। শিল্পী আসিফ আকবরের গাওয়া প্রতিটি গানই হৃদয়ে ছুঁয়ে যাওয়ার মতো। উল্লেখযোগ্য গানগুলো: ‘তোর জন্য কান্না পাচ্ছে খুব, তোর জন্যই কান্না চেপে রাখা’, ‘আমার অশ্রু ভাসায় যদি তোকে, তাই তো এমন অশ্রু চেপে থাক’ কিংবা ‘আমি তোমার জন্য বাঁচি, আমি তোমার জন্য মরি, সে তো নতুন কিছু নয়, আমি তোমায় চাইতে পারি’, ‘ও বাবা আমার হাতটা একটু ধর, বুড়ো মানুষ গায়ে ভীষণ জ্বর’, ‘এমনও বরষা তারে পড়ে মনে, দিন কাটে তাহার স্মরণে’।

সব কিছু মিলিয়ে অদ্ভুত সুন্দর একটা মিউজিক্যাল সিনেমা গহীনের গান। পরিচালক সাদাত হোসাইনকে অনেক ধন্যবাদ, ভালোবাসা আর শ্রদ্ধা। আমাদের যাপিত জীবনের গল্পগুলো সুন্দর ভাবে সেলুলয়েডে বন্দী করার জন্য। একসঙ্গে দেখা আমাদের কুড়ি জনের দর্শকের অধিকাংশের কারও না কারও জীবনের সাথে মিলে গেছে এই জীবনের গল্প বা গল্পের জীবন। যে জীবন সাদাতের ‘বোধ’, ‘দ্য স্যুজ’, ‘প্রযত্নে’ এমনকি কিংবদন্তী শিল্পী সৈয়দ আব্দুল হাদিকে নিয়ে নির্মিত ‘দ্য লেজেন্ড’ ডকুমেন্টারিতেও ছিলো। আমাদের কাছে ‘গহীনের গান’ একটি নান্দনিক গানের ছবি। সফল হোক।

গহীনের গানের চিত্রনাট্য ও পরিচালনা: সাদাত হোসাইন, প্রযোজক: বাংলাঢোল, অভিনয়: আসিফ আকবর, তানজিকা আমিন, সৈয়দ হাসান ইমাম, তমা মির্জা, আমান রেজা, কাজী আসিফ রহমান, তুলনা আল হারুন প্রমুখ।
বাংলাদেশে প্রায় ২৫ টি সিনেমা হলে চলছে গহীনের গান। দ্বিতীয় সপ্তাহে আজ থেকে যুক্ত হয়েছে চট্টগ্রামের আলমাস ও সিলেটের নন্দিতা সিনেমা হল।