সিডনিতে প্রবাসী বাংলাদেশী করোনায় আক্রান্ত

  •  
  •  
  •  
  •  

প্রশান্তিকা ডেস্ক: সিডনিতে বাংলাদেশী অধ্যুসিত লাকেম্বায় বসবাসকারী এক প্রবাসীর করোনা আক্রান্তের খবর পাওয়া গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, অস্ট্রেলিয়ায় তিনিই প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে কোভিড-১৯ এ সনাক্ত হলেন। আজ সিডনি মর্নিং হেরাল্ড পত্রিকা রাজ্যের চীফ হেল্থ অফিসারের বরাদ দিয়ে খবরটি প্রকাশ করে।

মেলবোর্নে করোনাভাইরাসের প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় সিডনি এয়ারপোর্টে বেশি করে স্ক্রিনিং করা হচ্ছে।

জানা গেছে, আক্রান্ত প্রবাসী সিডনির বালমেইন উলওয়ার্থস সুপার শপে ২৮ ও ২৯ জুন সেল্ফ চেক আউট বিভাগে কাজ করছিলেন। তিনি ১১ জুন বিশেষ ফ্লাইটে বাংলাদেশ থেকে মেলবোর্ন হয়ে সিডনি আসেন। সিডনি আসার আগে তিনি মেলবোর্নে দুই সপ্তাহের কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন। তার কর্মস্থলে দুইদিন কাজ করার পরে একটু অসুস্থ বোধ করলে স্টোর ম্যানেজার তাকে করোনা টেস্ট করাতে বলেন। তারপর তার শরীরে করোনা ধরা পড়ে। তিনি ২৬ জুন জেটস্টার এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে সিডনি পৌঁছান।
স্বাস্থমন্ত্রী ব্রাড হ্যাজার্ড বলেন, বালমেইনের স্টোরটিতে কোন ব্যক্তি ২৮ ও ২৮ জনে শপিং করতে গেলে তাদের অবশ্যই করোনা টেস্ট করাতে হবে যদি তাদের শরীরে ফ্লু বা ফ্লু’র মতো উপসর্গ দেখা দেয়।

স্টোরে কর্মরত ৫০ জন স্টাফ এখন আইসোলেশনে রয়েছেন। উলওয়ার্থস’র এক মুখোপাত্র বলেন, আক্রান্ত ব্যক্তির শরীরে করোনাভাইরাসের তেমন উপসর্গ ছিলোনা। তিনি সম্প্রতি বাংলাদেশ থেকে মেলবোর্ন হয়ে সিডনি এসেছেন বলেই তাকে পরীক্ষা করা হয়েছিলো।

স্বাস্থ বিভাগ জানিয়েছে, রাজ্যে ৮ ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তারা প্রত্যেকেই মেলবোর্ন থেকে সিডনি এসেছেন। নিউ সাউথ ওয়েলস’-এ আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩২১১ জনে।
অস্ট্রেলিয়ায় করোনাভাইরাসের প্রকোপ অনেকটা কমে এসেছিলো। প্রায় দুই সপ্তাহ হলো ভিক্টোরিয়া রাজ্যে এর প্রকোপ বেড়ে যায়। মেলবোর্নের প্রায় ৫০টি সাবার্ব এখন লকডাউনে রয়েছে। পুরো দেশে এখন পর্যন্ত ৮০০১ জন আক্রান্ত এবং ১০৪ জনের মৃত হয়েছে। এ পর্যন্ত দেশে ৮ লক্ষ ৮৯ হাজার জনের করোনা টেস্ট করা হয়েছে।