সিডনির মঞ্চে অভিনেত্রী রেহানা জামানকে সম্মাননা; নাটক দেখলেন ফারুকী ও তিশা

  •  
  •  
  •  
  •  

প্রশান্তিকা রিপোর্ট: সিডনিতে নিয়মিত মঞ্চস্ত নাটক লীভ মি এলোন’র দশম মঞ্চায়নের দিনে বাংলাদেশের গুণী অভিনেত্রী রেহানা জামানকে বিশেষ সম্মাননা জানান আলাপন থিয়েটার। গত ১৫ জুন শনিবার সন্ধ্যায় নন্দিত চলচ্চিত্র নির্মাতা মোস্তফা সরওয়ার ফারুকী ও তাঁর স্ত্রী অভিনেত্রী নুসরাত ইমরোজ তিশা ওয়ালীপার্কের হরাইজন থিয়েটারে লীভ মি এলোন নাটকটি দেখেন।

নাটক শেষে আলাপন থিয়েটারের পক্ষ থেকে তিশা ও ফারুকী অভিনেত্রী রেহানা জামানের হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন। এসময় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন নাটকের নির্দেশক নাট্যজন জন মার্টিন, অভিনেতা ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব গোলাম মোস্তফা, আলাপন থিয়েটারের মঞ্চ অধিকর্তা লাভলী মোস্তফা, রোনাল্ড পাত্র, অভিনেত্রী মৌসুমী মার্টিন প্রমুখ।

অভিনেত্রী রেহানা জামান মঞ্চ, টেলিভিশন ও চলচ্চিত্রে দাপটের সঙ্গে অভিনয় করেছেন।ঢাকার আরন্যক দলে  তাঁর উল্লেখযোগ্য নাটকগুলো ছিলো গিনিপিগ, ইবলিশ, ওরা কদম আলী, নানকার পালা প্রভৃতি। টেলিভিশনে জনপ্রিয় ধারাবাহিক সংশপ্তক, অয়োময়, স্বপ্নের শহর সহ বিভিন্ন সাপ্তাহিক নাটকে অভিনয় করেছেন তিনি। এখন বাস করছেন প্রবাসে। তাঁকে দেয়া আলাপনের সম্মাননায় বলা হয়, “রেহানা জামান নাটক শুরু করেছিলেন সেই সময় যখন আমাদের পরিবার মেয়েদের অভিনয়ের কথা শুনে ঘরের দরজা বন্ধ করেছিলো। আড়ালে বসে কত রসাল গল্প করেছে। কিন্তু রেহানা জামান নাটক ছাড়েননি। ঝড়ের মুখে জড়িয়েছিলেন শুদ্ধ নাট্য চর্চায়।”

নাটক শেষে ফারুকী ও তিশা লীভ মি এলোনের  শিল্পী, কলাকুশলী ও দর্শকদের নিয়ে মনোজ্ঞ আড্ডায় মিলিত হন। তাঁরা নাটকটির অভিনয়, নাট্যশৈলীর ভূয়শী প্রশংসা করেন। বিশেষ করে মুক্তিযোদ্ধা বাবার চরিত্রে গোলাম মোস্তফা ও মেয়ের চরিত্রে মৌসুমী মার্টিনের অভিনয়ের প্রশংসা করেন। নাটকটির আবহ সঙ্গীত করেছেন প্রখ্যাত সরোদ বাদক, শিল্পী ও সুরকার তানিম হায়াত খান রাজিত; কন্ঠ দিয়েছেন শিল্পী মিতা আতিক।

উল্লেখ্য, লীভ মি এলোন নাটকটি ২০০২ সালে প্রথম মঞ্চস্ত হলেও দীর্ঘ ১৬ বছর পর নিয়মিত মঞ্চায়নে ফিরে আসে। প্রশান্তিকার সঙ্গে আলাপকালে নির্দেশক জন মার্টিন বলেন, লীভ মি এলোনের নিয়মিত মঞ্চায়নের পাশাপাশি নতুন নাটক নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। তিনি বলেন, অস্ট্রেলিয়ায় যে বৃহৎ বাঙ্গালী প্রবাসী রয়েছে সেখানে অন্যান্য সাংস্কৃতিক চর্চা সহ শুদ্ধ ও নিয়মিত নাট্য চর্চা এখন সময়ের দাবী।